দশমিনার পুরাতন ব্রিজটি যেন মরণফাঁদ

পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার সদর ইউনিয়নের কাচাঁবাজার-নলখোলার পুরাতন ব্রিজটি এখন মরণফাঁদে পরিনত হয়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছে সাধারণ মানুষ।

দীর্ঘ ২৮ বছর বড় ধরনের মেরামত না করায় আয়রন ব্রিজটি এ দশায় পৌঁছেছে। আয়রন ব্রিজটি এখন পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, স্থানীয় সরকার উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থায়নে আয়রন ব্রিজটি ১৯৯০-৯১ সালে নির্মাণ করা হয়। আয়রন ব্রিজটি উপজেলা সদরের দশমিনা সদর-নলখোলা বন্দর খালের ওপর নির্মিত।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার সদরের কাচাঁবাজার-নলখোলা বন্দরের ব্যবসায়ী,ক্রেতা ও পথচারীদের পারপারের একমাত্র মাধ্যম এই আয়রন ব্রিজটি। উপজেলার এ ব্যস্ততম সড়কের ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজটি মাঝখান থেকে হেলে পড়েছে। ব্রিজের কংক্রিটের স্লিপার খুলে পড়ে যাচ্ছে। লোহার পাতগুলো ঝুকে বাঁকা হয়ে ভেঙে গেছে। সকল এ্যাঙ্গেল জীর্ণদশায় রয়েছে। ফলে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

বাজারে আসা ক্রেতা-বিক্রেতাদের একমাত্র চলাচলের মাধ্যম আয়রন ব্রিজটি। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মোটর সাইকেল ও রিকশা পার করলেও পারছে না ভাড়ী কোন যানবাহন। অসুস্থ রোগীদের পরতে হয় চরম বিপদে।

স্থানীয়রা আয়রন ব্রিজটি ভেঙে নতুন করে একটি নতুন ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন।

উপজেলা প্রকৌশলী মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আগামী ৬ মাসের মধ্যে আর সি সি কাজ শুরু হবে। ব্রিজটির দৈর্ঘ্য হবে ৩৫ মিটার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *