আটক সাংবাদিককে থানা থেকে ছাড়িয়ে আনলেন নুসরাতের মা

সোনাগাজীর নবগঠিত নুসরাত ফাউন্ডেশনের নামে প্রকাশিত একটি স্মরণিকা জব্দ করেছে ফেনী থানা পুলিশ। এই প্রকাশনায় জড়িত থাকার অভিযোগে সোমবার দুপুরে পুলিশ দৈনিক ‘সংগ্রাম’র সোনাগাজী উপজেলা প্রতিনিধি ও সোনাগাজীর ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষক মাহমুদুল হাসানকে আটক করে। পরে রাত সাড়ে ১২টার দিকে তাকে নুসরাতের মা-ভাই ও ফেনীর সাংবাদিকরা তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে আসে।

পুলিশ জানায়, সম্প্রতি সোনাগাজীর নুসরাত ফাউন্ডেশনের নামে আর্ট পেপারে চার রঙের প্রচ্ছদে ও অফসেট কাগজে প্রকাশিত স্মরণিকা কে বা কারা বিভিন্ন স্থানে বিলি করেন। ফেনীর ট্রাংক রোডের সবুজ আর্ট প্রেস থেকে ৭৬ পৃষ্ঠার স্মরণিকা প্রকাশিত হয়।

এতে নুসরাত হত্যার পর বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত বেশ কিছু প্রতিবেদন ও সংশ্লিষ্ট ছবি প্রকাশিত হয়। এতে দৈনিক ‘নয়া দিগন্ত’ ও দৈনিক ‘সংগ্রাম’ সহ বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত বেশ কিছু প্রতিবেদনের কপি স্থান পায়।

নুসরাত হত্যার পর তার ভাই মাহমুদুল হাসান নোমানের দায়ের করা মামলার কপিও সেখানে ছেপে দেওয়া হয়। পাশাপাশি বিভিন্ন কাগজে প্রকাশিত কলাম ও ছবি এতে স্থান পায়।

পুলিশ জানায়, সোমবার দুপুরে কতিপয় ব্যক্তি সোনাগাজীর ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষক ও স্থানীয় সাংবাদিক মাহমুদুল হাসানকে ফেনী মডেল থানায় নিয়ে যায়। এর আগে হাসান নুসরাত ফাউন্ডেশন এর নামে প্রকাশিত স্মরণিকাটি ফেনী বাজারে বিলি করছিলেন বলে ওই ব্যক্তিরা অভিযোগ করেন।

ঘটনাটি তাৎক্ষণিক তদন্তের স্বার্থে হাসানকে ফেনী মডেল থানার দায়িত্বরত কর্মকর্তার কক্ষে বসিয়ে রাখা হয়। খবর পেয়ে বিকেলে ও সন্ধ্যায় স্থানীয় সাংবাদিকরা সেখানে যান। রাত সাড়ে আটটার দিকে নুসরাতের মা শিরিনা আক্তার ও ছোট ভাই রাশেদুল হাসান রায়হানও থানায় যান।

এ সময় ফেনী মডেল থানার ওসি আবুল কালাম আজাদের নির্দেশে বিতর্কিত প্রকাশনার দু শ’ কপি ফেনী মডেল থানার নিয়ে আসা হয় এবং এগুলো জব্দ করা হয়। পরে নুসরাতের পরিবার ও ফেনীর জ্যেষ্ঠ সাংবাদিকদের অনুরোধে রাত সাড়ে ১২টার দিকে হাসানকে ছেড়ে দেয়া হয়।

হাসান দৈনিক সংগ্রামের সোনাগাজী প্রতিনিধি ও ফেনী থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক ফেনীবার্তার উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবেও কাজ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *