ছাত্রলীগে বিদ্রোহ, আ.লীগের ব্যাখ্যা

ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের অঙ্গসংঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই অন্তর্কোন্দলে জড়িয়ে পড়েন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। পদ না পাওয়া নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল করে ঘোষিত পূর্ণাঙ্গ কমিটিকে অবৈধ অভিহিত করেন। তারা এই কমিটি বাতিলের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করার সময় তাদের ওপর হামলা চালায় কমিটিভুক্ত অংশের একদল নেতাকর্মী।

এদিকে, কমিটিতে বিতর্কিত, চাকরিজীবী, নিষ্ক্রিয়, বিবাহিত, মাদক ব্যবসায়ী, হত্যা মামলার আসামী, ছাত্রী নির্যাতনকারীদের পদ দেয়া হয়েছে অভিযোগ করে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে কমিটি বাতিল করে নতুন কমিটি ঘোষণার আল্টিমেটাম দিয়েছে পদবঞ্চিত ও কাক্সিক্ষত পদ না পাওয়া নেতারা।

মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলনে তারা এ আল্টিমেটাম দেন। সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক সাইফুদ্দিন বাবু লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান।

তিনি বলেন, আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে কমিটি পুনর্গঠন করতে হবে। দাবি মানা না হলে অনশন ও গণপদত্যাগ করা হবে। এ সময় ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের প্রায় দুই শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

তবে, ছাত্রলীগের কমিটির ঘোষণার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মধুর ক্যান্টিনে যা ঘটেছে তা একটি ছোট্ট সাধারণ ঘটনা বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ।

মঙ্গলবার দুপুরে ধানমণ্ডিতে দলের সভাপতির কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের যৌথসভা শেষে হানিফ বলেন, ছাত্রলীগের কমিটির ঘোষণা নিয়ে ঢাবির মধুর ক্যান্টিনে যা ঘটেছে তা একটি ছোট্ট সাধারণ ঘটনা। এটি নিয়ে উদ্বেগের কোনো কারণ নেই।

আওয়ামী লীগের এ নেতা আরো বলেন, পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে সবাইকে পদ দেয়া যায় না। ছাত্রলীগ একটি বৃহৎ সংগঠন, হাজার হাজার নেতাকর্মী। বয়সে তরুণ হওয়ায় তাদের প্রতিক্রিয়াটা একটু ভিন্ন।

তিনি বলেন, যোগ্য নেতারা সবাই পদপ্রত্যাশা করেন। সবাইকে তো দেয়া যায় না। তখন কিছু ব্যক্তি অসন্তুষ্ট হতেই পারে। যে কারণে এ রকম একটু আধটু ঝামেলা হতেই পারে। আমাদের দেশে এমনটি হয়ে থাকে।

হামলার শিকার যারা: সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী দিশা, ছাত্রলীগের সাবেক উপ-অর্থ সম্পাদক ও ডাকসুর সদস্য তিলোত্তমা শিকদার, গত কমিটির প্রচার সম্পাদক সাঈফ বাবু, ডাকসুর ক্রীড়া সম্পাদক তানভীর ভুঁইয়া শাকিল, ডাকসুর সদস্য ও কুয়েত মৈত্রী হল ছাত্রলীগের সভাপতি ফরিদা পারভীন, সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী শায়লা, ডাকসুর কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক ও রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সভাপতি বিএম লিপি আক্তার হামলার শিকার হন। চেয়ারের আঘাতে রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী দিশার মাথা ফেটে যায়।

কমিটির সদস্যদের আচরণের নিন্দা: সোমবার কমিটি ঘোষণার পর মধুর ক্যান্টিনে পদবঞ্চিতদের ওপর চড়াও হওয়ায় পদধারীদের নিন্দাও হচ্ছে। বিশেষ করে কয়েকজন নারী কর্মীকে পিটুনির বিষয়টি মানতে পারছেন না সংগঠনের সঙ্গে বর্তমান বা অতীতে সম্পৃক্ত বহুজন। ফেসবুকে মোহাম্মদ ইকরামুল হক নামে একজন লিখেছেন, ‘মেয়েদের গায়ে হাত দিতে একটুকু কি লজ্জা লাগল না? নিজের সহযোদ্ধা বোনের গায়ে হাত! তোমরা কেমন ছাত্রলীগ? নারীদের গায়ে যেই সংগঠন হাত দেয় সেই সংগঠন বিলুপ্ত করে দেওয়াই উত্তম। যারা নিজেদের বোনকে শ্লীলতাহানি করে তারা অন্যের বোনকে রেপ করতেও বুক কাঁপবে না। …দুর্দিনে আমাগো মতো ছাত্রনেতারা কষ্ট কইরা দলটারে ক্ষমতায় আনছে আর আমাগো কষ্টের ফসল তোমরা এভাবে ধ্বংস করতাছো।’

ঢাবির শহিদুল্লাহ হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আরিফ হোসাইন রিফাত লিখেছেন, ‘এতদিন ক্যাম্পাস পাহারা দিলাম, মিটিং মিছিল করলাম, আন্দোলন সংগ্রাম করলাম, আর পদ দিলেন বিবাহিত, চাকরিজীবি, অছাত্রদের? আমাদের অপরাধ কী? এই পোস্টে কমেন্ট করে প্রশ্নের উত্তরগুলো দেবেন…..’

তাজুল ইসলাম লিখেছেন, এমন ম্যাসেজ রয়েছে যে, কক্সবাজারের একজনকে সহসম্পাদক পদ দিতে ৫০ লক্ষ টাকা নিয়েছে। তো পদের জন্য মারামারি হবে না কি কোলাকুলি হবে?’

এছাড়াও কমিটিতে পদ না পাওয়ায় কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মন্তব্য করছেন নারী নেত্রীরা। কমিটি ঘোষণার পরে জেরিন দিয়া নামে এক নেত্রী অভিযোগ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বলেন, শোভন ভাই আমাকে সবার সামনে মধুতে সেজেগুজে আসতে বলেছেন। গোলাম রাব্বানী ভাই সবার সামনে বলেছেন দু’দিনের মেয়ে কিভাবে পোস্ট পাইছো বুঝি না? কয়জনের বেডে গেছো এনএসআইয়ের রিপোর্ট করলে জানা যাবে। তখন আপনাদের কথার যোগ্য জবাব দিয়েছিলাম। আমাকে কমিটিতে না রেখে কি তার শোধ নিলেন?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *