গ্রেপ্তারের দুই ঘণ্টা পর মুক্ত সেই ছাত্রলীগ নেতা

একুশের বার্তা ডেস্ক- সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক নারী ইন্টার্ন চিকিৎসককে ‘ছুরি দেখিয়ে হত্যা ও ধর্ষণের’ হুমকি দেওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়ার দুই ঘণ্টার মাথায় জামিনের কাগজ দেখিয়ে বেরিয়ে গেছেন ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ার হোসেন।

পাঁচ দিন আগে এক রোগীকে নিয়ে উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে তুলকালাম বাধানো এই সারোয়ার হোসেন সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি।

ওই ঘটনায় সোমবার রাতে সারোয়ারের নামে মামলা হওয়ার পর মঙ্গলবার বেলা ১টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করার কথা জানান সিলেট কোতোয়ালি থানার ওসি সেলিম মিয়া।

কিন্তু বেলা ৩টার দিকে থানায় গিয়ে সারোয়ারের জামিনের কাগজ দেখিয়ে তাকে মুক্ত করে নিয়ে যান তার আইনজীবী।

ওসি সেলিম মিয়া বলেন, “কাল রাতে মামলা হওয়ার পর সারোয়ার আজ আদালতে গিয়ে আত্মসমর্পণ করে জামিন পান। কিন্তু বিষয়টি আমাদের জানা ছিল না। আদালত থেকে ফেরার সময় আমরা তাকে গ্রেপ্তার করি।

“সারোয়ার সে সময় জামিনের কথা বললেও কাগজ দেখাতে না পারায় তাকে থানায় নিয়ে আসা হয়। পরে তার আইনজীবী জামিনের কাগজ নিয়ে এলে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।”

উল্লেখ্য, গত ৯ মে বিকালে ছাত্রলীগের ১০-১৫ নেতাকর্মী পেটের পীড়ায় ভোগা একজনকে সিলেট উইমেন্স মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। এ সময় রোগীর সঙ্গে একজন থেকে বাকিদের বাইরে যেতে বলেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে চিকিৎসকের ওপর চড়াও হয় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।

এ সময় দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সারোয়ার হোসেন চিকিৎসক নাজিফা আনজুম নিশাতকে ছুরি দেখিয়ে হত্যা ও ধর্ষণের হুমকি দেন বলে অভিযোগ করেন ওই চিকিৎসক। নিশাত নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে বিষয়টি উল্লেখ করে পোস্ট দিলে এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *