চুয়াডাঙ্গায় পরিচয় মিলেছে গুলিবৃদ্ধ অজ্ঞাত লাশের

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: চুয়াডাঙ্গার জীবননগরের উথলী মোল্লাবাড়ি থেকে উদ্ধারকৃত গুলিবৃদ্ধ অজ্ঞাত লাশের পরিচয় মিলেছে। সে জেলার শীর্ষ সন্ত্রসী আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দ্দার আলমডাঙ্গা উপজেলা শহরের মসজিদ পাড়ার পুলিশের অবশরপ্রাপ্ত কনস্টেবল মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে ইমরান (৩৫)। তার বিরুদ্ধে আলমডাঙ্গা, দামুড়হুদা ও কুষ্টিয়ার মিরপুর থানায় ডাকাতি, ছিনতায়, ধর্ষণ ও চুরিসহ ১৪ টি মামলা রয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) সকাল ৯ টার সময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দ্দার ইমরানের মাথায় এবং বুকে গুলি করে হত্যা করা লাশটি অজ্ঞাত লাশ হিসেবে উদ্ধর করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধারের সংবাদ পেয়ে ইমরানের পরিবারের লোকজন মর্গে এসে লাশ সনাক্ত করেন।

জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ গণি বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ধারণা করা হচ্ছে নিজেদের মধ্যে অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জেরে মাথায় ও বুকে গুলি করে ইমরানকে খুন করা হয়েছে। তবে হত্যার কারণ ও খুনিদের শনাক্ত করতে পুলিশি অনুসন্ধান ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে।

সহকারী পুলিশ সুপার (দামুড়হুদা জীবননগর সার্কেল) আবু রাসেল জানান, নিহত ইমরান চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের মোস্ট ওয়ান্টেড। তার বিরুদ্ধে ডাকাতি, ছিনতাই, অস্ত্র ব্যবসা এবং নারী ও শিশু নির্যাতন মামলাসহ ১৪টি মামলা রয়েছে। তাকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশ দীর্ঘদিন ধরে খুঁজছিলো।

নিহত ইমরানের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, চুরি হয়ে যাওয়া একটি মোবাইলের সূত্র ধরে যশোর গোয়েন্দা পুলিশ ও আলমডাঙ্গা থানা পুলিশের যৌথ একটি দল মঙ্গলবার রাতে আলমডাঙ্গা থেকে ইমরানকে গ্রেফতার করে। এরপর থানায় গিয়েও তার কোনো সন্ধান মেলেনি।

আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ আসাদুজ্জামান মুন্সি নিহতের পরিবারের অভিযোগকে ভিত্তীহিন দাবি করে বলেন, ইমরান নামে তার থানাতে কেউ গ্রেফতার ছিল না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *