‘রাতের পরেই হয় নতুন সূর্যোদয়’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘বর্তমান দানব সরকারকে সরাতে সমস্ত দল মত নির্বিশেষে সকলকে রাস্তায় নেমে আসতে হবে। এটা এখন একমাত্র পথ। কিন্তু অনেকেই হতাশার কথা বলেন। কিন্তু হতাশাই শেষ কথা নয়। একটা কথা মনে রাখতে হবে। প্রতি রাতের পরেই হয় নতুন সূর্যোদয়।’

রোববার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে শিশু ও নারী অধিকার আন্দোলন ফোরাম আয়োজিত এক সেমিনারে তিনি এসব কথা করেন।

‘সাগর রুনি! বিশ্বজিৎ! নুসরাত! তনু! মীম! আবরার! সুমি!’ সহ সকল নৃশংসতাই যেনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা!’ শীর্ষক এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশে বর্তমান পরিস্থিতির কথা তুলে ধরে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘এটা ভেঙে ফেলতে হবে। ভেঙে ফেলে একটা নতুন সমাজ ও রাষ্ট্র তৈরী করতে হবে। আমাদের বয়স হয়ে যাচ্ছে, বৃদ্ধ। আমাদের সময় আমরা নতুন তৈরী করেছিলাম…। লড়াই ও যুদ্ধ করেছি। আর আমরা আর্দশের জন্য যুদ্ধ করেছি। সুতরাং আমাদের তরুণ ও যুবকদেরকে এগিয়ে আসতে হবে। তবে খুব দুঃখ হয়, যখন দেখি, বেশিরভাগ তরুণরা- যারা বিশ্ববিদ্যালয় ও বড় বড় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করছে তারা রাজনীতি করতে চায় না। অথবা রাজনীতিবিদদের পছন্দ করে না। এর কারণ যথেষ্ট আছে। তারপরও দেশটা তো তাদের? তাদেরকেই এদেশে বাস করতে হবে এবং দেশটা নির্মাণ করতে হবে। সৌন্দর্য্যের সাথে এবং সৎ মানুষ নিয়ে আসতে হবে। একটা সুন্দর সমাজ নির্মাণ করতে হবে।’

টাকা বানানো একটি রোগ- প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সেই রোগে তো এখন আপনারাই বেশি আক্রান্ত হয়ে গেছেন।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘বাংলাদেশে যারা একটু দূর্বল। শারীরিক দিক দিয়ে দূর্বল তারা সবচেয়ে বেশি অনিরাপদ। যেখানে ২ মাসের শিশু থেকে শুরু করে ৯০ বছরের বৃদ্ধা নির্যাতিত হয়। আর তরুণ, যুবক, ভাই ও বাবা কেউ এখানে নিরাপদ না। বাংলাদেশ আসলে এখন একটা সন্ত্রাসী জনপদে পরিণত হয়েছে। আর এই সন্ত্রাস হচ্ছে, সকল ধরণের। আর সারা বাংলাদেশেই প্রতিদিন শিশু ও নারীদের ওপর নির্যাতন চলছে।’

আয়োজক সংগঠনের আহ্বায়ক বেগম সেলিমা রহমানের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব নিপুন রায় চৌধুরীর সঞ্চালনায় সেমিনারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ড. এমাজ উদ্দিন আহমেদ, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ফজলুর রহমান, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ওবায়দুল ইসলাম প্রমুখ বক্তব্যে রাখেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *