বাবা-মায়ের সঙ্গে রঙিন ক্ষুদে সুপারস্টার জয়ের জন্মদিন

ঢাকাই সিনেমার শীর্ষ নায়ক শাকিব খান ও নায়িকা অপু বিশ্বাসের একমাত্র সন্তান আব্রাম খান জয়। ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর কলকাতার একটি হাসপাতালে তার জন্ম হয়।

দেশের তারকাদের সন্তানদের মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত জয়। তার জনপ্রিয়তা চোখে পড়ার মতো। সাধারণ মানুষ থেকে অনেক তারকাও জয়ে মুগ্ধ। অনেকে তাকে আদর করে ক্ষুদে সুপারস্টারও বলে ডাকেন।

গোপনে বিয়ের ৮ বছর পর মা হন অপু বিশ্বাস। মা হওয়ারও এক বছর পর ২০১৭ সালে পুত্র জয়কে প্রকাশ্যে নিয়ে আসেন তিনি। শান্ত-সরল চাহনির নিষ্পাপ জয় মুহূর্তেই দাগ কাটে কোটি মানুষের মনে। ফেসবুক সয়লাব হয়ে যায় জয়ের ছবিতে ও তাকে ঘিরে স্ট্যাটাসে।

তাকে নিয়ে মাতামাতি এখনো বহমান শাকিবsha-অপুর ভক্তদের মধ্যে। তার নিজের নামে রয়েছে ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রাম আইডি। সেখানে সবসময়ই ফলোয়ারদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকে জয়।

গতকাল ২৭ সেপ্টেম্বর ছিলো জয়ের জন্মদিন। জানা গেছে, জন্মদিনের দিন সকালেই বাবার সঙ্গে দেখা হয়েছে আব্রাম খান জয়ের। বাবা ছেলে একসঙ্গে বেশ কিছুটা সময় কাটিয়েছেন। বাবার গাড়িতে বসে খুনসুটিও করেছেন। জন্মদিনে ছেলের জন্য বাবা শাকিব খান কি উপহার নিয়ে গিয়েছিলেন তা জানা না গেলেও জানা গেছে, কেক ও উপহার নিয়েই সকালে জয়কে নিজেই দেখতে গিয়েছিলেন শাকিব।

Joy-02.jpg

জয়ের জন্মদিনে একটা সুন্দর অনুষ্ঠান করার ইচ্ছে ছিল। তবে ‘আগুন’ সিনেমার শুটিংয়ে অংশ নিতে গতকাল ঢাকা ছাড়তে হয়েছে শাকিবকে। তাই সেটা সম্ভব হয়নি। তবে বিদায় বেলা পুত্রের গালে চুমু খেয়েই কক্সবাজারের ফ্লাইটে উড়াল দিয়েছেন শাকিব খান।

এদিকে বাবার আয়োজনের অভাবটি পূরণ করে দিয়েছেন মা অপু। জয়ের সবরকম দেখাশোনা তিনিই করে থাকেন। ছেলেকে স্কুলে নেয়া-আনা, কেনাকাটা, স্টাইল-ফ্যাশন সবকিছুই অপু করেন মমতায়।

গেল বছরগুলোতে পুত্রের জন্মদিনে আয়োজনও করে থাকেন তিনি। এবারে তার ব্যতিক্রম হয়নি। গতকাল সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি রেস্তোরাঁয় জন্মদিনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন অপুর পরিবারের সদস্যরা ও ঘনিষ্ঠজনরা। হাজির ছিলেন অনেক তারকাও। সবাই মিলে কেক কেটে জয়ের তৃতীয় জন্মদিন পালন করা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল গোপনে বিয়ে করেন শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস। ২০১৭ সালে নিজেদের বিয়ে ও ছেলের ব্যাপারটি প্রকাশ্যে নিয়ে আসেন অপু। এরপর বহু নাটকীয়তা শেষে ২০১৭ সালের ২২ নভেম্বর শাকিব খান তালাকের জন্য আবেদন করেন। তারই প্রেক্ষিতে ২০১৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি এই দম্পতির তালাক সম্পন্ন হয়।

বর্তমানে ছেলেকে নিয়ে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *