পাক-ভারতের ‘দোষারোপের’ খেলা

সন্ত্রাসীদের লালন-পালনের জন্য একে অপরকে দোষারোপ করে পাল্টাপাল্টি বক্তব্য দিয়েছে ভারত ও পাকিস্তান।

নয়াদিল্লির অবৈধ কর্মকাণ্ডের জেরে কাশ্মীরসহ পুরো অঞ্চলের শান্তি মারাত্মক হুমকিতে পড়েছে বলে অভিযোগ পাকিস্তান প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভির।

আর কাশ্মীরের অবরোধ তুলে নিতে জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদে পাকিস্তানের সঙ্গে ৫৮টি রাষ্ট্র একমত হয়েছে উল্লেখ কোরে তাকে স্বাগত জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

তবে পাকিস্তানের দাবি প্রত্যাখ্যান করে ভারত বলেছে, মানবাধিকার পরিষদে পাকিস্তান কাশ্মীর নিয়ে রাজনীতি করার যে অপচেষ্টা চালিয়েছে তা ব্যর্থ হয়েছে।

ভারতীয় বাহিনীর নিশ্ছিদ্র টহলে এখনো অবরুদ্ধ জম্মু কাশ্মীর। বন্ধ দোকান পাট এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। মোবাইল নেটওয়ার্কের পাশাপাশি এখনো স্বাভাবিক হয়নি সড়কের যান চলাচল। কার্যত থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে গোটা অঞ্চলজুড়ে। কাশ্মীরের সরকারি তথ্য বলছে, বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর এখন পর্যন্ত প্রায় ৪ হাজার কাশ্মীরিকে আটক করেছে কর্তৃপক্ষ।

সর্বোচ্চ সতর্কতার মধ্যেই কাশ্মীরজুড়ে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান অব্যাহত রেখেছে নিরাপত্তা বাহিনী। বৃহস্পতিবার কাঠুয়া থেকে পাকিস্তান ভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদের তিন সদস্যকে আটকের দাবি করে পুলিশ।


কাঠুয়ার পুলিশ সুপার শ্রীধর পাতিল বলেন, গ্রেফতার তিন অস্ত্রধারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তাদের সঙ্গে থাকা ট্রাকে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে আমরা ছয়টি অস্ত্র, ১৮০ রাউন্ড গুলি ও ছয়টি ম্যাগাজিন উদ্ধার করেছি।

এদিকে, কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানকে আবারো সন্ত্রাসীদের আশ্রয় প্রশ্রয়দাতা হিসেবে অভিযোগ করেছে নয়াদিল্লি। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমার বলেন, জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদে কাশ্মীর ইস্যুকে পাকিস্তানের রাজনীতিকরণের অপচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। কোন মিথ্যা বক্তব্যকে চার পাঁচবার পুনরাবৃত্তি করলেই তা সত্য হিসেবে প্রতিষ্ঠা হয় না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তবে কাশ্মীরের মানুষকে স্বাভাবিক জীবন ও তাদের অধিকার ফিরিয়ে দিতে মানবাধিকার পরিষদে পাকিস্তানের সঙ্গে ৫৮টি দেশ একমত হয়েছে বলে দাবি করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। বৃহস্পতিবার এক টুইট বার্তায়, পাকিস্তানের সঙ্গে সহমত পোষণ করা দেশের পাশাপাশি মানবাধিকার পরিষদে কাশ্মীর সংকট সমাধানে ইউরোপীয় ইউনিয়নের আহ্বানকে স্বাগত জানান তিনি।

একইদিন পার্লামেন্টে দেয়া ভাষণে ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের মাটিতে সন্ত্রাসীদের লালন পালন করার অভিযোগ করেন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি।

পাক প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি বলেন, ভারতের বাধা সত্ত্বেও কাশ্মীর ইস্যুটি পাকিস্তান সরকার সফলভাবে জাতিসংঘসহ বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছে। কাশ্মীরিদের বলতে চাই, আমরা আপনাদের সঙ্গেই আছি। ভারত প্রতিনিয়ত সীমান্তের নিয়ন্ত্রণ রেখায় যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করছে। ভারতের অবৈধ কর্মকাণ্ডের জেরে এই অঞ্চলের শান্তি সৃঙ্খলা মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে।

তবে পাকিস্তানকে আন্তর্জাতিক বিশ্ব আর বিশ্বাস করে না বলে অভিযোগ করেছেন দেশটির খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার ইজাজ আহমেদ। পাক গণমাধ্যম হাম নিউজের এক টকশোতে, দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের জন্য প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের পাশাপাশি ক্ষমতাসীন দলকে দায়ী করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *