বিক্রমের সন্ধান পাওয়ার খবর গুজব!

ব্যর্থ অবতরণের পর বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেনি ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ইসরো)। অথচ গণমাধ্যমে খবর এসেছে বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়েছে। চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডার বিক্রমের অবতরণ ব্যর্থ হওয়ার পর থেকেই ইসরোকে নিয়ে ‘জাতীয়তাবাদের জিগির’ তোলা হচ্ছে বলে অনেকেই মনে করছেন। আর তারই অঙ্গ হিসাবে ‘সাফল্যের’ ভূয়া খবর ও ছবি ছড়ানো হচ্ছে।

এ বিষয়ে ইসরো চেয়ারম্যান কে শিবন বলেন, চেষ্টা চলছে। কিন্তু সাফল্য আসেনি। বিক্রম যে আছড়ে পড়েছে (হার্ড ল্যান্ডিং)। চন্দ্রপৃষ্ঠে বিক্রম সামান্য কাত হয়ে রয়েছে। কিন্তু তার ক্ষতি হয়নি। এর পরেই বিষয়টি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়ায়। পরে শিবন অন্য একটি সংবাদ সংস্থাকে জানান, বিক্রম কেমন রয়েছে, তা তারা এখনও জানেন না।

অন্যদিকে এমন খবরের সত্যতা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে। শিবনের নামেও একাধিক টুইটার ও ফেসবুক প্রোফাইল থেকে খবর ছড়ানো হচ্ছে। এ দিন ইসরো বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, শিবনের কোনও ব্যক্তিগত প্রোফাইল নেই।

সংবাদ সংস্থা ইসরোর সূত্রকে উদ্ধৃত করে বলেছে, বিক্রম কাত হয়ে থাকলেও ছবি দেখে মোটামুটি অক্ষত বলেই মনে হচ্ছে। কিন্তু এই মনে হওয়া কতটা যৌক্তিক, তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। ইসরো সূত্রের খবর, চন্দ্রযানের অরবিটার নিজস্ব কক্ষপথে চাঁদকে প্রদক্ষিণ করছে। সে বর্তমানে যেখানে রয়েছে, সেখান থেকে বিক্রমের ছবি তোলা সম্ভব নয়। সে এক বার পাক খেয়ে বিক্রমের মাথার উপরে এলে ছবি তোলা হবে। এখনও পর্যন্ত বিক্রমের তাপচিত্র বা থার্মাল ইমেজ ইসরোর কাছে রয়েছে। কিন্তু তা দিয়ে বিক্রমের ক্ষয়ক্ষতি বোঝা সম্ভব নয়। তা ছাড়া, বিক্রম অক্ষত থাকলেও তার অ্যান্টেনা, সৌরপাত বা সোলার প্যানেল এবং অন্যান্য যন্ত্রপাতি ঠিকঠাক রয়েছে কি না, সেটাও বোঝা যাচ্ছে না। সেগুলি ঠিক না থাকলে বিক্রমের পক্ষে কাজ করা সম্ভব নয়। সূত্র- আনন্দবাজার পত্রিকা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *